ঘাসফড়িং এর স্নায়ুতন্ত্র ও সংবেদী অঙ্গসমূহ

স্নায়ুতন্ত্র(The nervous system)

স্নায়ুতন্ত্রের সাহায্যে প্রাণী বাহ্যিক ও অভ্যন্তরীণ উদ্দীপনা গ্রহণ করে এবং সেই অনুযায়ী উপযুক্ত প্রতিবেদন সৃষ্টি করে।

ঘাসফড়িং এর স্নায়ুতন্ত্র তিন ভাগে বিভক্ত। যথাঃ

(১) কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্র

(২) প্রান্তীয় স্নায়ুতন্ত্র এবং

(৩) সমবেদী স্নায়ুতন্ত্র।

(১) কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্র(Central nervous system)

এ স্নায়ুতন্ত্র আবার নিম্নোক্ত অংশ সমন্বয়ে গঠিত। যথাঃ

(i) মস্তিষ্ক স্নায়ু গ্রন্থি(Brain or the Supra Pharyngeal ganglion)

এটি মাথার সম্মুখবর্তী অঞ্চলে অবস্থিত এবং স্নায়ুতন্ত্রের অগ্রবর্তী স্ফীততম অংশ। মস্তিষ্ক দুটো সুপ্রা ইসােফেজিয়াল বা অধিঃগবিলীয় স্নায়ুগ্রন্থির সমন্বয়ে গঠিত। এখান থেকে দুটো স্নায়ু চক্ষুতে, দুটো স্নায়ু শুঙ্গে এবং দুটো স্নায়ু ল্যাবিয়ামে প্রবেশ করে।

দেহে সংবেদী অঙ্গগুলাের সাথে মস্তিষ্ক সংবেদী স্নায়ুর মাধ্যমে যুক্ত। এ অংশ সংবেদী অঙ্গের কার্য নিয়ন্ত্রণ করে।

(ii) অধঃগ্রাসনালীয় বা অধঃগলবিলীয় স্নায়ুগ্রন্থি (Subpharyngeal ganglion)

অন্ননালীর নীচে অবস্থিত দুটো সাব- ইসােফেজিয়াল স্নায়ুগ্রন্থি পরস্পর মিলিত হয়ে একটি স্নায়ুগ্রন্থি গঠন করে। এখান থেকে স্নায়ুতন্ত্র মুখােপাঙ্গ, লালাগ্রন্থি ও মাথার পেশীতে প্রবেশ করে।

কিছু সংখ্যাক স্নায়ুকোষের দেহ একসাথে।মিলিত হয়ে স্নায়ুগ্রন্থি (Ganglion) গঠিত হয়)।

(iii) পরি—গ্রাসনালীয় স্নায়ু যােজক বা পরিগলবিলীয় স্নায়ুযােজক (Peripharyngeal nerve connective)

মস্তিষ্ক থেকে উৎপন্ন হয়ে একজোড়া পরিগ্রাসনালীয় স্নায়ুযােজক গ্রাসনালীকে বেষ্টন করে মস্তিষ্ক ও অধঃগ্রাসনালীয় স্নায়ুগ্রন্থির মধ্যে সংযােগ ঘটায়।

(iv) অঙ্কীয় স্নায়ুরজ্জু (Ventral nerve cord)

এক জোড়া স্নায়ুসূত্র পরপর গায়ে গায়ে ঘেঁষে অধঃগ্রাসনালীয় স্নায়ুগ্রন্থির পশ্চাৎ প্রান্ত থেকে দেহের অঙ্কীয় মধ্যরেখা বরাবর পশ্চাৎ প্রান্ত পর্যন্ত বিস্তৃত। এদেরকে অঙ্কীয় স্নায়ুরজু বলে।

এ স্নায়ুরজ্জুতে মােট ১ জোড়া গ্যাংলিয়ন বা স্নায়ুগ্রন্থি আছে। তার মধ্যে তিনজোড়া ৩টি বক্ষখন্ডে এবং ৬ জোড়া উদরের প্রথম ছয়খন্ডে অবস্থিত। বক্ষস্থলের স্নায়ুগ্রন্থি থেকে স্নায়ুতন্তু বের হয়ে বক্ষপেশী, পদ ও পাখায় প্রবেশ করেছে। ৬ষ্ঠ উদরীয় স্নায়ুগ্রন্থি জোড়া সর্বাপেক্ষা বড়।

এই গ্রন্থি থেকে কয়েক জোড়া স্নায়ুবের হয়ে পায়ুসারকাস, পায়ু কূর্চ (পুরুষে) ও আনুষঙ্গিক অঙ্গে যায়। [ সুতরাং ঘাসফড়িং এ মােট ১১জোড়া স্নায়ুগ্রন্থি আছে।

সংবেদী অঙ্গসমূহ (SENSE ORGANS)

নিয়ে বর্ণিত সংবেদী অঙ্গসমূহ ঘাসফড়িং এ পরিলক্ষিত হয়

১. স্পর্শ সংবেদী অঙ্গ (ORGAN FOR TOUCH)

অ্যান্টেনা, পায়ুসমূহ এবং কিউটিকলে অবস্থিত রােমসমূহ স্পর্শ সংবেদনশীল ।

২, ঘ্রাণ ও স্বাদ সংবেদী অঙ্গ (ORGAN FOR SMELL AND TASTE)

অ্যান্টেনা, ম্যাক্সিলা এবং ল্যাবিয়াল পাল্পে অবস্থিত সেন্সরি হেয়ার (sensory hair) ঘ্রাণ ও স্বাদ সংবেদী।

৩. শব্দ সংবেদী অঙ্গ (ORGAN FOR RECEIVING SOUND)

ঘাসফড়িং এ প্রথম উদরীয় খন্ডকের প্রতিপার্শ্বে একটি করে একজোড়া শ্রবণ অঙ্গ থাকে।

এরা একটি কাইটিন (chitin) নির্মিত রিং এর মধ্যে প্রসারিত টিমপ্যানিক পর্দা (tympanic membrane) সম্বলিত। টিমপ্যানাম (tympanum) এর ভেতরের গাত্রে সাদা, সংবেদী শ্রবণ অঙ্গ (auditory apparatus) থাকে, যাকে মুলারস অঙ্গ (Mullars organ)ও বলে।

ঘাসফড়িং পশ্চাৎপদে অবস্থিত টিবিয়াল স্পাইন (tibial spine) ডানার শিরায় ঘসে শব্দ উৎপন্ন করতে পারে ।

৪. আলােক সংবেদী অঙ্গ (ORGANS OF RECEIVING LIGHT)

ওসেলাসসমূহ এবং পুঞ্জাক্ষী ঘাসফড়িং এর আলােক সংবেদী অঙ্গ । প্রতিটি ওসেলাস ও সরলাক্ষী পুরু কিন্তু স্বচ্ছ কিউটিকল নির্মিত লেন্স এবং রেটিনুলার কোষ নিয়ে গঠিত। ওসেলাসমূহ শুধুমাত্র অন্ধকার এবং আলাের পার্থক্য করতে পারে।

Leave a Comment